অপরাধ

অপহরণের পর গৃহবধূকে ঢাকায় এনে গণধর্ষণ, ভিডিও

(Last Updated On: ডিসেম্বর ২০, ২০২০)

গাজীপুরের টঙ্গীতে পারিবারিক বিরোধ মীমাংসার আশ্বাসে এক গৃহবধূকে ঢাকায় এনে গণধর্ষণ ও তার ভিডিও ধারণের অভিযোগ উঠেছে তিন যুবকের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে টঙ্গী পূর্ব থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন এবং পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা হয়েছে। পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে শনিবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠিয়েছে।

এ তিনজন হলেন- সৈয়দ রায়হান হোসেন ওরফে সাদ্দাম (২৮), আব্দুর রহমান (৩২) ও জসিম (৩০)।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ভুক্তভোগী গৃহবধূ ও তার স্বামী দত্তপাড়ার একটি বাসায় ভাড়া থাকেন। সাংসারিক বিষয় নিয়ে গত ১০ ডিসেম্বর স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে স্বামী মিলন ওই গৃহবধূকে তালাকের হুমকি দেন। ওই গৃহবধূ বিষয়টি তার স্বামীর বন্ধু সৈয়দ রায়হান হোসেন ওরফে সাদ্দামকে অবহিত করেন। পরে রায়হান তাকে জানান, শুক্রবার দুপুরে এসে মীমাংশা করে দেবেন।

পরদিন দুপুর ২টার দিকে রায়হান ওই গৃহবধূকে ফোনে জানান, ঝগড়ার বিষয়টি মীমাংশা করার জন্য তিনি দত্তপাড়া রিয়া গার্মেন্টসের মোড়ে দাঁড়িয়ে আছেন। ফোন পেয়েই তিনি সেখানে যান। এ সময় তাকে একটি সিএনজিতে তুলে রাজধানীর ভাটারাস্থ নতুন বাজার রায়হানের বাসায় নিয়ে যান। সেখানে রায়হান এবং তার দুই বন্ধু আব্দুর রহমান ও জসিম তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। এক পর্যায়ে আব্দুর রহমান তার মোবাইলে ওই নারীর নগ্ন ভিডিও ধারণ করেন।

ধর্ষণের বিষয়টি কাউকে জানালে তারা মোবাইলে ধারণকৃত নগ্ন ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেন। পরে তাকে একটি সিএনজিতে উঠিয়ে টঙ্গীর দত্তপাড়ায় পাঠিয়ে দেন অভিযুক্তরা।

এ ঘটনায় গত শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) ধর্ষণের শিকার ওই নারী টঙ্গী পূর্ব থানায় মামলা করলে ওই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছে থাকা নগ্ন ভিডিও ধারণকৃত মোবাইলটিও উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আমিনুল ইসলাম বলেন, অপহরণ ও দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে দায়েরকৃত মামলার তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

Hits: 61