জাতীয়

খুচরা বাজারে প্রায় ৩০% বেশি সয়াবিনের দাম


Warning: strlen() expects parameter 1 to be string, array given in /home/khalinews/public_html/wp-includes/functions.php on line 262
(Last Updated On: )

এক বছরের ব্যবধানে আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ৪৪.৫২ শতাংশ। অপরদিকে, দেশের খুচরা বাজারে বেড়েছে ৭৩.৯১ শতাংশ। অর্থাৎ আন্তর্জাতিক বাজারের চেয়ে দেশের খুচরা বাজারে তেলের দাম ২৯.৩৯ শতাংশ বেশি বেড়েছে।
বাংলাদেশ সরকারের কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের তথ্যমতে ২০২০ সালের ১৮ অক্টোবর পাম তেলের খুচরা দর ছিল প্রতি লিটার ৮৩ টাকা। আর সয়াবিন তেলের দাম ছিল প্রতি লিটার ৯২ টাকা। সয়াবিন তেল বোতলজাত হতেই অর্থাৎ খুচরা ক্রেতাকে পরিশোধ করতে হবে ১৬০ টাকা। এক বছরের ব্যবধানে খুচরা বাজারে সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ৭৩.৯১ শতাংশ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, খাতুনগঞ্জে গতকাল (মঙ্গলবার) সয়াবিন তেল বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ ৫৪০০ টাকায় এবং পাম অয়েল বিক্রি হয়েছে প্রতিমণ ৫০৫০ টাকায়। সে হিসেবে সয়াবিন তেলের দাম পড়েছে লিটার ১৩৫ টাকা। আর পাম অয়েলের পাইকারি দর প্রতি লিটার ১২৬ টাকা ২৫ পয়সা।
অপরদিকে, বিশ্বব্যাংকের তথ্যমতে, ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে সয়াবিন তেলের দাম ছিল প্রতি টন ৯০৫ ডলার। গতকাল তা ছিল ১৩০৮ ডলার। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ৪৪.৫২ শতাংশ। তবে তার আগে গত মে মাসে ছিল ১৫৬৮ ডলার, জুনে ছিল ১৫১৮ ডলার, জুলাইয়ে ছিল ১৪৬৮ ডলার এবং আগস্টে ছিল ১৪৩৬ ডলার।
সংশ্লিষ্টরা সূত্র জানায়, করোনার কারণে জাহাজে পণ্য পরিবহন ব্যয়ও আগের তুলনায় কিছুটা বেড়ে গেছে।
ক্রেতাদের সাথে আলাপকালে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভোজ্যতেলের দাম দিন দিন ক্রেতাদের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির দোহায় দিয়ে বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম আবারো বাড়ানো হল। এখন বোতলজাত প্রতি লিটার সয়াবিন তেলের জন্য ক্রেতাকে পরিশোধ করতে হবে ১৬০ টাকা। যা আগে ছিল ১৫৩ টাকা।
চাক্তাই খাতুনগঞ্জ আড়তদার সাধারণ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, আজকের ঘোষণায় বাজারে তেলের দাম আরো বেড়ে যাবে। অর্থাৎ ক্রেতাদের মাসিক বাজার খরচ আরো বেড়ে যাবে।
কনজুমার এসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ক্যাব) এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এস এম নাজের হোসাইন বলেন, প্রতিটি ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়ে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিন তেলের দাম বাড়লেও বাংলাদেশে তার দ্বিগুণ বেড়ে গেছে। সরকার ক্রেতাদের স্বার্থ না দেখে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ দেখছে। আন্তর্জাতিক বাজারে কয়েকমাস আগে দাম বাড়লেও এখন দাম নিম্নমুখী। কিন্তু দেশে দাম বাড়ছে। যা কোনভাবেই কাম্য নয়।


উল্লেখ্য, গতকাল (মঙ্গলবার) তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বাণিজ্য মন্ত্রণালয় চূড়ান্ত করে বাংলাদেশ ভোজ্যতেল পরিশোধনকারী ও বনস্পতি উৎপাদক সমিতিকে জানিয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত সয়াবিন ও অপরিশোধিত পাম অয়েলের দাম বাড়ায় বাংলাদেশ ট্রেড এন্ড ট্যারিফ কমিশন ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে তেলের এই দাম নির্ধারণ করেছে সংগঠনটি। এখন এক লিটার সয়াবিন তেল ১৬০ টাকায় বিক্রি হবে। আর পাঁচ লিটারের এক বোতল তেল ৭৬০ টাকায় বিক্রি হবে; যা আগে ছিল ৭২৮ টাকা। এ ছাড়া খোলা এক লিটার সয়াবিন তেল ১৩৬ টাকা ও বোতলজাত পাম সুপার তেল ১১৮ টাকা দরে কিনতে পারবেন ক্রেতারা। এই মূল্য অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে বাংলাদেশ ভোজ্যতেল পরিশোধনকারী ও বনস্পতি উৎপাদক সমিতির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। দেশের মোট চাহিদার ৯৫ শতাংশ ভোজ্য তেল বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। ২০২০ সালের পর থেকে ভোজ্যতেলের আন্তর্জাতিক বাজারে অস্বাভাবিক ঊর্ধ্বগতির কারণে দেশে কয়েক দফায় সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে।