স্বাস্থ্য

টনসিলের কারণে গলাব্যথা হলে যা করবেন

(Last Updated On: ডিসেম্বর ২০, ২০২১)

শীত মৌসুমে ছোট-বড় সবারই টনসিলের সমস্যা হতে পারে। গলাব্যথা এর মূল লক্ষণ। এর সঙ্গে জ্বর, গলার স্বরের পরিবর্তনও হতে পারে। ছোটদের বমি ও ডায়রিয়া হতে পারে।

গলার ভেতরে দেখলে দুটো লাল ও সাদা হলুদ আস্তরণযুক্ত টনসিল দেখা যায়। টনসিলের প্রদাহ হঠাৎ একবার হতে পারে। আবার বছরে একাধিকবারও হতে পারে। দীর্ঘমেয়াদি টনসিলের প্রদাহ হলে নাক, কান ও গলারোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে।

ঋতু পরিবর্তনের সময় বছরে একবার বা দুবার টনসিলের প্রদাহ হতে পারে। সাধারণত তিন-চার দিন থেকে দুই সপ্তাহ পর্যন্ত স্থায়ী হয় এ ব্যথা। কম মাত্রার কিছু জীবাণু বেশি সক্রিয় হয়ে টনসিলের ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে। ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া উভয় ধরনের জীবাণুই টনসিলের প্রদাহ সৃষ্টি করে থাকে।

যেভাবে চিকিৎসা নেবেন
টনসিলের ব্যথা প্রতিরোধের প্রথম পদক্ষেপ হলো গলায় ঠান্ডা না লাগানো। এ জন্য কমফোর্টার বা মাফলার ব্যবহার করা, কুসুম গরম পানি পান করা ইত্যাদি। টনসিলের প্রদাহ থাকলে গরম পানিতে লবণ মিশিয়ে দিন-রাত মিলিয়ে চার থেকে পাঁচবার গড়গড়া করুন। কুসুম গরম পানি পান করতে থাকুন যত দিন না ব্যথা কমে। প্রচুর তাজা ফলমূল ও শাকসবজি খেতে হবে; বিশেষ করে ভিটামিন সি আছে এমন ফল, যেমন জাম্বুরা, কমলা, মাল্টা, আমলকী এগুলো বেশ উপকারী। ৭ থেকে ১০ দিন ধুলাবালু ও ঠান্ডা বাতাস থেকে দূরে থাকতে হবে।

বারবার ও দীর্ঘস্থায়ী সংক্রমণ হলে অনেক বেশি ব্যথা হয় ও তীব্র জ্বর আসে। এ জন্য চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের প্রয়োজন হতে পারে। গলার ভেতর থেকে লালা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করে দেখতে হতে পারে। আবার দীর্ঘমেয়াদি টনসিলের প্রদাহে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজনও হতে পারে। গলার এ জাতীয় প্রদাহে পরোক্ষভাবে বাতজ্বরের ঝুঁকি দেখা দিতে পারে। এ জন্য গলাব্যথার সঙ্গে বা ব্যথা সেরে যাওয়ার পর অস্থিসন্ধিতে ব্যথা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

লেখক: ডা. শাহেদ সাব্বির আহমেদ,
আবাসিক মেডিকেল অফিসার, কাউনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, কাউনিয়া, রংপুর।

Hits: 2