খেলা

দ্বিতীয় ইনিংসেও ‘ডাক’ মারার প্রতিযোগিতা

(Last Updated On: নভেম্বর ২৩, ২০১৯)

ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে ব্যর্থতার চরম প্রদর্শনী দেখিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার সাদমান ইসলাম এবং ইমরুল কায়েস। পাইপলাইনে খেলোয়াড় নেই; তাই এই দুজনকে খেলাতে বাধ্য হচ্ছেন নির্বাচকেরা। কিন্তু তারা যেন কত দ্রুত প্যাভিলিয়নে ফিরতে পারেন সেই চেষ্টা করে যাচ্ছেন। প্রথম ইনিংসের পুনরাবৃত্তি ঘটতে যাচ্ছে দ্বিতীয় ইনিংসেও। দলের স্কোরবোর্ডে কোনো রান যোগ না হতেই ‘ডাক’ মারেন সাদমান। ইশান্ত শর্মার বলে তাকে এলবিডাব্লিউ দেন আম্পায়ার। এই সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করতে গিয়ে অকারণে একটি রিভিউ নষ্ট করে বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে মাত্র ৩০.৩ ওভার ব্যাট করতে পেরেছিল সফরকারীরা!

সাদমান আউট হওয়ার কিছু পরেই দলীয় ২ রানে ‘ডাক’ মারেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। সেই ইশান্তের বলে ক্যাচ তুলে দেন উইকেটকিপার ঋদ্ধিমানের গ্লাভসে। প্রথম ইনিংসেও ‘ডাক’ মেরেছিলেন মুমিনুলসহ ৪ ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশ ২ উইকেটে ২ রান।

এর আগে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে করা ১০৬ রানের জবাবে আজ ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে ৯ উইকেটে ৩৪৭ রান তুলে নিজেদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। শনিবার গতকালের দুই অপরাজিত ব্যাটসম্যন আজিঙ্কা রাহানে এবং বিরাট কোহলি চতুর্থ উইকেটে বড় জুটি গড়ার পথেই ছিলেন। ৬৯ বলে ৫১ রান করা আজিঙ্কা রাহানেকে ফিরিয়ে দিনের প্রথম সাফল্য এনে দেন তাইজুল ইসলাম। এরই সঙ্গে ভাঙে ৯৯ রানের দারুণ এক জুটি। ৮৯ রানে অপরাজিত কোহলির সঙ্গী হন রবীন্দ্র জাদেজা। এরপর ১৫৯ বলে ১২ বাউন্ডারিতে ঐতিহাসিক ম্যাচে ভারতের হয়ে প্রথম সেঞ্চুরি হাঁকান কোহলি। এটা ‘কিং কোহলি’র টেস্ট ক্যারিয়ারের ২৭তম সেঞ্চুরি।

গোলাপি বলের টেস্টে ভারতের হয়ে প্রথম সেঞ্চুরির পরও রানের চাকা ঘুরিয়ে যাচ্ছিলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ভয়ংকর এই ব্যাটসম্যানকে থামানোটা জরুরি হয়ে পড়েছিল। সেই কাজটি করে দেখালেন এবাদত হোসেন আর তাইজুল ইসলাম। বাংলাদেশি পেসারের তৃতীয় শিকার হয়ে ১৯৪ বলে ১৩৬ রান করে ফিরেছেন ভারত অধিনায়ক। ডিপ স্কয়ার লেগে অসাধারণ এক ক্যাচ নিয়েছেন নাইম হাসানের বদলি হিসেবে নামা তাইজুল। এর আগে রবীন্দ্র জাদেজাকে (১২) বোল্ড করে প্রথম শিকার ধরেছেন আরেক পেসার আবু জায়েদ রাহী। এরপর দ্রুত উইকেট হারাতে থাকে ভারত।

আল-আমিনের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন স্পিন অল-রাউন্ডার রবিচন্দ্রন অশ্বিন (৯)। উমেশ যাদবকে (০) সাদমান ইসলামের তালুবন্দি করে দ্বিতীয় শিকার ধরেন আরেক পেসার আবু জায়েদ। ইশান্ত শর্মাকে (০) এলবিডাব্লিউ করে দেন আল-আমিন। ৩৩১ রানে নবম উইকেট হারায় ভারত। শেষ উইকেটে ঋদ্ধিমান সাহার সৌজন্যে কিছু রান ওঠে। শেষ পর্যন্ত অল-আউট থেকে বাঁচতে ৯ উইকেট ৩৪৭ রান তোলার পর ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। তাদের লিড হয় ২৪১ রানের। ঋদ্ধিমান ১৭ রানে অপরাজিত থাকেন। ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন আল-আমিন এবং এবাদত। ২টি নিয়েছেন আবু জায়েদ।

মন্তব্য

Hits: 19