বিনোদন

প্রধানমন্ত্রীকে দেখে দেখেই নেত্রী হয়ে উঠছেন বর্ষা

(Last Updated On: ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২১)

পুরো নাম আফিয়া নুসরাত বর্ষা। কিন্তু দর্শকরা তাকে বর্ষা নামেই চেনেন। ২০১০ সালে ‘খোঁজ: দ্য সার্চ’ ছবিতে অনন্ত জলিলের সঙ্গে অভিনয়ের মাধ্যমে সিনেমায় অভিষেক ঘটে তার। পর্দার এ জুটি ২০১১ সালে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হন। এরপর হৃদয় ‘ভাঙা ঢেউ’, ‘মোস্ট ওয়েলকাম’ ও ‘মোস্ট ওয়েলকাম টু’-এর মতো বড় বাজেটের ছবি উপহার দেন তারা। তবে এবার বর্ষাকে নাম ভূমিকায় রেখে নির্মাণ হচ্ছে অনন্ত জলিলের নতুন ছবি ‘নেত্রী- দ্য লিডার’। ছবিটিতে তুরস্কের একজন বড় সুপারস্টার অভিনয় করছেন, রয়েছেন ভারতের রাভি কিষাণ, প্রদীপ রাওয়াত ও কবির দুহান সিংকের মতো অভিনেতা। ছবিটি পরিচালনার মূল দায়িত্বে রয়েছেন তেলেগু নির্মাতা উপেন্দ্র মাধব। তবে বাংলাদেশ অংশের পরিচালক থাকবেন অনন্ত জলিল নিজেই। সম্প্রতি ‘নেত্রী- দ্য লিডার’ ছবির জন্য প্রস্তুতি ও ক্যারিয়ারের নানা বিষয়ে কথা বললেন বর্ষা।

‘নেত্রী- দ্য লিডার’ ছবিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করছেন, প্রস্তুতি কেমন?

খেয়াল করে দেখবেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশে নেত্রীদের ভূমিকায় যে নায়িকারা অভিনয় করেছেন তাদের ওজন বাড়াতে হয়েছে। কিন্তু নেত্রী-দ্য লিডার করতে গিয়ে আমার বেলা ঘটলো বিপরীত ঘটনা। এই ছবির জন্য ৬ কেজি ওজন কমাতে হয়েছে আমাকে। ওজন কমানোর মধ্য দিয়েই প্রস্তুতি পর্বটা শুরু হয়। এরপর একজন লিডার কীভাবে ডায়ালগ ডেলিভারি দেন সে বিষয়টি আয়ত্ব করতে হচ্ছে।

চরিত্রের প্রস্তুতি নিতে কি কাউকে ফলো করছেন?

না, কাউকে ফলো করছি না। কারণ আমাদের সামনেই একজন নেত্রী উজ্জ্বল হয়ে আছেন। নেত্রী কীভাবে হতে হয়, তিনি কী ধরনের আচরণ করেন সেটা দেখতে আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সামনে রেখেছি। তিনি কীভাবে শাড়ি পড়েন, কীভাবে ঘড়ি পড়েন, তার পার্সোনালিটি- এসব দেখছি প্রতিনিয়ত। শিখছিও।

‘নেত্রী- দ্য লিডার’ ছবির গল্প লিখেছেন অনন্ত জলিল। গল্পের শুরু থেকেই কী জানতেন এই ছবির নায়িকা হচ্ছেন?

না, ছবিটির বিষয়ে বা গল্পের বিষয়ে কিছুই জানতাম না। বাসায় বসে টানা গল্পটি লিখেছে অনন্ত। সে (অনন্ত) যখন বাসায় বসে গল্প লিখতো, আমি তখন অফিস করতাম। আমি জানতামই না অনন্ত আমাকে নিয়ে এতো বড় প্ল্যান করছে।

অনন্ত জলিলের গল্প ও কাজের প্রতি আপনার আত্মবিশ্বাস কতটুকু?

তার প্রতি আমার পুরো আত্মবিশ্বাস রয়েছে। সে যেটাই করবে, যতটুকু করবে সেটা ভালো করার চেষ্টা করবে। আর সিনেমায় আমার রোল যতটুকু রাখুক, ততটুকুই গুরুত্বপূর্ণ কিছু থাকবে। দেখার মতো কিছু হবে। আমি স্ক্রিনে কতটা থাকবো এটা নিয়ে ভাবি না। নিজেকে কতটা ভালোভাবে প্রেজেন্ট করতে পারছি- এটাই ভাবি।

এবার একটু অন্য প্রসঙ্গে আসি। ফেসবুকে নিয়মিত রান্নার ভিডিও প্রকাশ করছেন। খেতে নাকি রান্না করতে- কোনটা বেশি পছন্দ?

আমি খেতে খুবই পছন্দ করি। তবে দেড়-দুই মাস ধরে খাওয়া-দাওয়া কমিয়ে দিয়েছি, ওজন বাড়বে তাই। আর রান্না করতে আমার বেশ ভালো লাগে। সারাদিন অফিস করে যখন বাসায় ফিরি, তখন শরীর খুবই ক্লান্ত থাকে। আমাদের দুই সন্তান। বাসায় ফিরে তাদেরও ম্যানেজ করতে হয়। তারপরও দেখা যায়, অফিসের ড্রেস চেঞ্জ করেই রান্না-বান্নায় লেগে পড়ি। রান্না করতে পছন্দ করি বলেই কিন্তু এটা করি। রান্না করতে আমার কখনও বিরক্ত আসে না।

সামনে ভালোবাসা দিবস। যদি জানতে চাই বর্ষার কাছে ভালোবাসা মানে কি?

ভালোবাসার সংজ্ঞা অনেক বড়। তবে ভালোবাসা দিবসকে টার্গেট করে যদি ভালোবাসার কথা বলি তাহলে ভুল হবে। ভালোবাসা আসলে কোনো দিবস কেন্দ্রিক হতে পারে না। এক কথায় আমার কাছে ভালোবাসার মানে হচ্ছে বিশ্বাস।

‘নেত্রী -দ্য লিডার’ ছবিতে নেত্রীর ভূমিকায় অভিনয় করছেন। কিন্তু ‘দিন- দ্য ডে’ ছবিতে আপনাকে কী চরিত্রে দেখা যাবে?

ছবিটিতে আমি যে চরিত্রে অভিনয় করেছি তা গুছিয়ে বলা সম্ভব না। কারণ চরিত্রটা খুবই ক্রিটিক্যাল। এটা হলে গিয়ে দেখতে হবে। তারপরও বলি, এতে আমি একজন পুলিশ অফিসার, একজন স্ত্রী ও একজন মা।

আপনাকে সবসময় অনন্ত জলিলের বিপরীতেই দেখা যায়। অন্য কোনো নায়কের সঙ্গে অভিনয় করার ইচ্ছা নেই?

না, এমন কোনো ইচ্ছে আমার নেই। আর বিষয়টি কিন্তু এমন না, যে অনন্ত আমাকে অন্য হিরোদের সঙ্গে কাজ করতে নিষেধ করে। সে আমাকে বলে অন্য কোনো অপশনের কথা, আমিই করি না। তার বাইরে আমার কাজ করার ইচ্ছে নেই।

যদি জানতে চাই বর্ষার ‘ক্রাশ’ কে?

আমার কাছে যেটা মনে হয় তা হলো, বিবাহিত মেয়েদের ক্রাশ থাকা ঠিক না। আর বিশেষ করে আমরা যারা মিডিয়াতে আছি, প্লাস বিবাহিত, তাদের ক্রাশ থাকলেও সেটা মনে মনে থাকা উচিত। প্রকাশ করা ঠিক হবে না।