খেলা

ভারতকে হারিয়ে জন্মদিন রাঙালেন হাসারাঙ্গা

(Last Updated On: জুলাই ৩০, ২০২১)

২৪তম জন্মদিনটিকে রাঙাতে এর থেকে ভালো উপলক্ষ বোধ হয় আর পেতেন না ওয়ানেন্দু হাসারাঙ্গা। ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করে নিজ দেশ শ্রীলঙ্কাকে পাইয়ে দিলেন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ভারতের বিপক্ষে প্রথমবার সিরিজ জয়ের স্বাদ। মূলত এই হাসারাঙ্গার বোলিংয়েই সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে দলীয় রান ১০০ এর আগেই অলআউট ভারত। ৮২ রানের মামুলি লক্ষ্য শ্রীলঙ্কা পেরিয়ে গেছে ৭ উইকেট আর ৩৩ বল বাকি থাকেতই। তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ দুটিতে জিতে সিরিজও নিজেদের করে নিয়েছে লঙ্কানরা। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে মোট ৫ বার ভারতের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলে তাদের এটি প্রথমবার সিরিজ জয়।

এমনিতেই করোনায় জর্জরিত ভারত দল দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টির মতো এদিনও নামে ৫ ব্যাটসম্যান আর ৬ বোলার নিয়ে। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে অনঅভিজ্ঞ এই দলটি শুরু থেকেই উইকেট হারাতে থাকে। দলীয় ৫ রানের সময় প্রথম আঘাত হানেন দুসমান্থু চামিরা। কোন রান যোগ করার আগেই আউট অধিনায়ক শিখর ধাওয়ান।

১৫ বলে ৯ রান করা দেবদূত পাড়িকালের উইকেট নেন রমেশ মেন্ডিস। এরপরই ৩ বলের মধ্যে ২ উইকেট তুলে নেন হাসারাঙ্গা। স্যাঞ্চু স্যামসনকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন কোন রান যোগ করার আগেই। ১৪ রান করা রুতুরাজ গায়কোয়াড়কে আউট করেন একই ভাবে। ফলে ২৫ রানেই ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলে ভারত।

নিতিশ রানা আর ভুবনেশ্বর কুমার মিলে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করলেও সেই জুটিতে আঘাত হানেন দাসুন শানাকা। ৬ রান করে নিতিশ ফেরার পর ৩২ বলে ১৬ রান করে ফেরেন ভুবেনেশ্বর। ৬২ রানের সময় রাহুল চাহারকে ফেরালে শানাকা, ১ রানের মধ্যে ফিরে যান বরুন চক্রবর্তীও। শেষ দিকে কুলদ্বীপ যাদবের ব্যাটে ৮০ রান পাড় করতে পারে ভারত। দলীয় সর্বোচ্চ ২৩ রান করে তিনি অপরাজিত থাকেন। ৫ রা‌নে অপরাজিত থাকেন চেতন সাকারিয়া। শ্রীলঙ্কার হয়ে হাসারাঙ্গার ৪ উইকেট বাদেও ২টি উইকেট শিকার করেছেন শানাকা। ১টি করে উইকেট চামিরা এবং মেন্ডিসের।

ছোট লক্ষ্য তাঁড়া করতে নেমে শ্রীলঙ্কাও খুব একটা ভালো শুরু করতে পারেনি। ৫ ওভার ৫ বলে ২৩ রান তুলে তারা হারায় প্রথম উইকেট। ১৮ বলে ১২ রান করা আভিস্কা ফার্নান্দোর উইকেট নিয়ে ভারতকে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন চাহার। ২৭ বলে ১৮ রান করা মিনোদ ভানুকার উইকেটিও তার। এরপর এই চাহার নেন আরো একটি উইকেট, ম্যাচে তার তৃতীয়। ১৩ বলে ৬ রান করে ফেরেন সাদেরা সামারাবিক্রমা। এরপর আর দলকে কোন উইকেট হারাতে দেননি ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা এবং হাসারাঙ্গা। সিলভা ২০ বলে ২৩ রান করে আর হাসারাঙ্গা ৯ বলে ১৪ রান করে দলকে জিতিয়ে তবেই মাঠ ছাড়েন।