জাতীয়

সাউথ বাংলা ব্যাংক চেয়ারম্যানের অ্যাকাউন্ট জব্দ

(Last Updated On: মার্চ ১৪, ২০২১)

অর্থপাচার, বেনামি ঋণ, রপ্তানি না করেও রপ্তানি দেখানোসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে এবার নতুন প্রজন্মের সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংকের চেয়ারম্যান এসএম আমজাদ হোসেনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জব্দ করলো বাংলাদেশ ব্যাংক। তার স্ত্রী সুফিয়া আমজাদ ও পালিত মেয়ে তাজরির অ্যাকাউন্টও জব্দ রাখতে বলা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিএফআইইউ থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা সব ব্যাংকে পাঠানো হয়। এর আগে এসএম আমজাদ হোসেনের দেশ ত্যাগ এবং সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা দেয় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) থেকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ২৩ (১) (গ) ধারার আলোকে আগামী ৩০ দিনের জন্য এসব অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ (জব্দ) রাখতে হবে। একই সাথে কোনো ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট থাকলে চিঠি পাওয়ার তিন দিনের মধ্যে যাবতীয় তথ্য বিএফআইইউতে পাঠাতে হবে। এক্ষেত্রে কোন নামে কবে অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে, হিসাবে টাকার পরিমাণ, লেনদেনসহ বিস্তারিত তথ্য পাঠাতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়া দেশের বাইরে অর্থ নেওয়া অর্থপাচার আইনে অপরাধ। জানা গেছে, বৈধভাবে বিদেশে অর্থ নেননি এসএম আমজাদ হোসেন। অথচ যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বিলাসবহুল বাড়ি করেছেন। শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই তিনি দু’টি বিলাসবহুল বাড়ি করেন। তবে উচ্চ কর হারের কারণে সম্প্রতি যার একটি বিক্রি করে দিয়েছেন। মূলত রপ্তানি মূল্য কম দেখিয়ে বিদেশে অর্থ পাচারের মাধ্যমে বিভিন্ন দেশে সম্পদ গড়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। অর্থপাচার ছাড়াও সাউথ বাংলা ব্যাংক থেকেই বেনামি ঋণ নিয়েছেন তিনি। বিএফইইউ ও দুদকের প্রাথমিক অনুসন্ধানে এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক তার অ্যাকাউন্ট জব্দ করলো।

২০১৩ সালে অনুমোদন পাওয়া ৯ ব্যাংকের একটি সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক। এসএম আমজাদ শুরু থেকে ব্যাংকটি চেয়ারম্যান। ঋণ জালিয়াতি, রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অর্থায়নসহ বিভিন্ন অভিযোগে গত বছরের ১২ জানুয়ারি তার দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেয় দুদক। এছাড়া সম্পদ বিক্রি করে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যাচ্ছেন এরকম তথ্যের ভিত্তিতে গত ডিসেম্বরে এসএম আমজাদ হোসেন, তার স্ত্রী ও পালিত মেয়ের সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে বিএসএসইতে চিঠি দেয় সংস্থাটি। এরকম অবস্থার মধ্যে এবার তার অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হলো।