প্রধান পাতা

অর্থ আত্মসাৎ মামলায় অধ্যক্ষ কারাগারে এলাকায় মিষ্টি বিতরণ

(Last Updated On: জানুয়ারি ১৭, ২০২১)

প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাতের মামলায় জামালপুর জেলার ইসলামপুর জে জে কে এম গার্লস হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. আব্দুছ ছালাম চৌধুরীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) তাকে কারাগারে পাঠান আদালত। এ খবরে এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, সিনিয়র শিক্ষক মো. শামছুল আলম বাদী হয়ে গত বছরের ১৩ আগস্ট প্রতিষ্ঠানের পুরোনো ভবন বিক্রির টাকা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ল্যাপটপ, শিক্ষার্থীদের বেতন-ভাতা তছরুপ করাসহ প্রায় কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আদালতে একটি মামলা করেন।

মামলা তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দেন আদালত। তদন্তে অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি প্রমাণিত হয়। পরে আদালত আসামি আব্দুছ ছালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। পরে তিনি উচ্চ আদালতে আগাম জামিন নেন।

জামিনের মেয়াদ শেষে গত ১৪ জানুয়ারি জামালপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। বিচারক মো. জুলফিকার আলী খান মামলায় উভয় পক্ষের শুনানি শেষে তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

jagonews24

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট এসএম জামাল আব্দুন নাসের বাবুলের অনুপস্থিতিতে মামলাটি শুনানি করেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট রাশেদুল ইসলাম খোকন।

তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, অধ্যক্ষ আব্দুছ ছালাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

এর আগে গত বছরের ২ ফেব্রুয়ারি তিস্তা এক্সপ্রেস ট্রেনের কেবিনে অধ্যক্ষ মো.আব্দুছ ছালাম চৌধুরীকে এক নারীসহ আপত্তিকর অবস্থায় আটক করে দেওয়ানগঞ্জ রেলওয়ে পুলিশ। তারপর থেকে ইসলামপুরের ঐতিহ্যবাহী নারী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জে জে কে এম গার্লস হাইস্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক, অভিভাবক ও সাধারণ শিক্ষার্থীসহ এলাকাবাসী তার অপসারণের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাৎ মামলায় অধ্যক্ষ আব্দুছ ছালাম চৌধুরীর কারাগারে পাঠানোর খবরে মিষ্টি বিতরণ করাসহ আনন্দ-উল্লাসে ফেটে পড়ে এলাকাবাসী।