প্রধান পাতা

পাখিটি মরেই গেল

(Last Updated On: জানুয়ারি ৪, ২০২১)

সাদা রঙের কিউই পাখি এমনিতেই বিরল। তার ওপর ‘মানকুরা’ নামক সাদা কিউই পরিচিত ‘বিরলতম’ হিসেবে। বিরলতম এই কিউই পাখি মারা গেছে বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে নিউজিল্যান্ডের পাকাহা জাতীয় বন্যপ্রাণি কেন্দ্র।

২০১১ সালে নিউজিল্যান্ডের উল্লেখিত সংরক্ষণ কেন্দ্রে জন্ম নিয়েছিল কিউই পাখিটি। যা পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র বন্দি অবস্থায় জন্ম নেওয়া সাদা কিউই। বিরল একটি জিনগত বৈশিষ্ট্যের কারণে জন্মের সময় থেকেই পাখিটির পালকের রঙ ছিল খয়েরির পরিবর্তে সাদা। সম্প্রতি বেশ কয়েকটি অস্ত্রোপচারের ধাক্কা সামলাতে না পেরে পাখিটি মারা যায়। 

পিপল নিউজের খবরে বলা হয়েছে, ডিসেম্বরের শুরুর দিকে খাওয়া বন্ধ করে দেয় পাখিটি। ফলে দ্রুত ওজন হারাতে থাকে। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা দেখতে পান, ডিম্বাশয়ে অপরিণত একটি ডিম আটকে থাকায় দুর্বল হয়ে পড়েছে মানকুরা। প্রয়োজন পড়ে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ডিম বের করার। প্রথম অস্ত্রোপচার সফল হলেও পাখিটির ডিম্বাশয় এবং বাম ডিম্বাশয়ের বেশিরভাগ অংশ অপসারণের জন্য পুনরায় অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন দেখা দেয়।

কিন্তু প্রথম অস্ত্রোপচারের পর পাখিটির শারীরিক অবস্থার অবনতি অব্যাহত ছিল। ফলস্বরূপ চিকিৎসকরা অনেক যত্নের পরও রক্ষা করতে পারেনি পাখিটির জীবন। 

বিরলতম এই কিউই পাখির মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে প্রাণিপ্রেমীদের মনে। পাকাহা জাতীয় বন্যপ্রাণি কেন্দ্রের অপারেশনস ম্যানেজার বলেন, ‘পাকাহা পরিবারের অংশ ছিল মানকুরা। গত ১০ বছর সে অনেক মানুষকে আনন্দ দিয়েছে, তেমনি নিজ প্রজাতির দুর্দশা নিয়েও সবার দৃষ্টি  কেড়েছে। আমরা খুব মিস করবো তাকে।’

প্রসঙ্গত, কিউই পাখি নিউজিল্যান্ডের গুটিকয়েক দ্বীপেই শুধু পাওয়া যায়। পাখি হলেও এগুলো উড়তে পারে না। ধূসর বাদামি রঙের এই পাখির আকৃতি অনেকটা মুরগির মতো। কিন্তু পাখির এই প্রজাতি অনেকটাই হুমকির মুখে। নিউজিল্যান্ডে এদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জোর চেষ্টা চলছে।